স্মার্টফোন বা ট্যাবলেটকে নকল অ্যাপস থেকে মুক্ত রাখুন

স্মার্টফোন বা ট্যাবলেটকে নকল অ্যাপস থেকে মুক্ত রাখুন

বর্তমানে স্মার্টফোন বা ট্যাবলেট ডিভাইস আমাদের নিত্যসঙ্গী।  স্মার্টফোন বা ট্যাবলেট ডিভাইসে কিছু অ্যাপস বিল্টইন আকারেই আমরা পেয়ে থাকি। এই যেমন- ই-মেইল, ফেসবুক, ক্যালেন্ডার, টাইমার, ম্যাপস, মিউজিক, ফটোস প্রভৃতি।

এরপর আমরা প্রয়োজন মতো অ্যাপস্টার থেকে দরকারি অ্যাপস ডাউনলোড করে নিই।  তবে অনেক সময় সঠিকভাবে চিনতে না পারায় ভুয়া অ্যাপস ডাউনলোড করে ফেলি।  এসব ভুয়া অ্যাপস অনেক সময় ক্ষতির কারণ হয়ে ওঠে।  অনলাইনে প্রায় সবখানেই ছড়িয়ে রয়েছে এ ধরনের নকল বা ভুয়া অ্যাপস।

এখানে তুলে ধরা হলো, কীভাবে আপনি আপনার স্মার্টফোনে নকল বা ভুয়া অ্যাপ ডাউনলোড করা থেকে বিরত থাকবেন-

নির্ভরযোগ্য অ্যাপ স্টোর:

অ্যাপস ডাউনলোডের সময় লক্ষ্য রাখুন অ্যাপস্টোর নির্ভরযোগ্য কিনা। হয়তো অনেক সময় নির্দিষ্ট কোনো পোর্টাল থেকেও অ্যাপস ডাউনলোড করার সুযোগ পাবেন। কিন্তু যতটা সম্ভব অ্যাপস ডাউনলোডের নির্ভরযোগ্য নয় এমন পোর্টাল এড়িয়ে চলুন। এছাড়া প্লেস্টোরের মতো অফিসিয়াল অ্যাপ স্টোরগুলোতেও অনেক সময় ক্ষতিকর অ্যাপস পাওয়া যায়। তবে অফিসিয়াল অ্যাপ স্টোর কর্তৃপক্ষ সেগুলো যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সরিয়ে ফেলতে সচেষ্ট থাকে। তাই সর্বদা অফিসিয়াল অ্যাপ স্টোরগুলোর ওপরই ভরসা রাখুন এবং এতে করে ভুয়া অ্যাপ ডাউনলোডের আশঙ্কা অনেকাংশেই হ্রাস পাবে।

অ্যাপসের বিবরণ পড়ূন:

কোনো অ্যাপে প্রচুর বানান বা ব্যাকরণগত ভুল খুঁজে পেয়েছেন? এক্ষেত্রে এটিকে ভুয়া অ্যাপের একটি সম্ভাব্য ইঙ্গিত হিসেবেই ধরে নিতে পারেন। এতে কোনো সন্দেহ নেই, যে কোনো বিশ্বস্ত ডেভেলপার এ ধরনের ভুল করবে না। তাই কোনো একটি অ্যাপের মৌলিক বিবরণে এ ধরনের ভুল থাকা মানেই হলো সেই অ্যাপটি ভুয়া হওয়ার আশঙ্কাই বেশি।

রিভিউগুলো দেখে নিন:

কোনো অ্যাপ ডাউনলোড করার আগে তার রিভিউগুলো পড়ে নেওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ। যদি কোনো অ্যাপ ভুয়া হয়ে থাকে, তবে নির্দিষ্ট কিছু রিভিউয়ে কেউ না কেউ তা স্পষ্টভাবে উল্লেখ করবেনই। তাই কোনো অ্যাপ ডাউনলোড করার আগে অ্যাপটির বিষয়ে অন্যরা কী বলেছে তা দেখে নিতে ভুলবেন না।

ডেভেলপারের ব্যাকগ্রাউন্ড যাচাই করুন:

অ্যাপ ডেভেলপারের ওয়েবসাইট পরিদর্শন করার চেষ্টা করুন অথবা অ্যাপ স্টোরের বিবরণ থেকে তার সম্পর্কে জানার চেষ্টা করুন। একটি অ্যাপ ডাউনলোড করার আগে সর্বদা এর ডেভেলপার সম্পর্কে জানার চেষ্টা করুন। এক্ষেত্রে যদি সন্দেহজনক কিছু খুঁজে পান- যেমন যদি তাদের কোনো ওয়েবসাইট বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রোফাইল না থাকে, তাহলে সেই অ্যাপটি ডাউনলোড না করাটাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

ডাউনলোডের সংখ্যা বিবেচনা করুন :

কোনো অ্যাপ আসল না ভুয়া, তা যাচাই করার এটি খুবই ভালো একটি সূচক। যদি ডাউনলোডের সংখ্যা অনেক বেশি হয়ে থাকে তবে এটি কখনই সম্ভব নয় যে, এত বিপুলসংখ্যক মানুষ এর মাধ্যমে প্রতারণার স্বীকার হয়েছেন। তবে মনে রাখবেন, ওপরের পয়েন্টগুলোই অ্যাপ আসল না ভুয়া, তা যাচাই করার করার জন্য ধ্রুবক নয়। এ ছাড়াও এক্ষেত্রে আরও বিভিন্ন উপায়ে চেষ্টা করা যেতে পারে। যা হোক, যাচাই না করে শুধু অন্ধবিশ্বাসে কোনো অ্যাপ ডাউনলোড করার চেয়ে এই পয়েন্টগুলো অনুসরণ করে তা যাচাই করেই ডাউনলোড করাটাই উত্তম।

Please follow and like us:

Post Reads: 71 Times

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *