সুরা আল ইখলাস এর উচ্চারণ,অর্থ ও শানে নুযূল

সুরা আল ইখলাস এর উচ্চারণ,অর্থ ও শানে নুযূল

সুরা আল ইখলাস এর  বিষয়বস্তু  : আল্লাহ স্বীয় সত্তা ও গুণাবলীতে একক ও অনন্য এবং তাঁর সমতুল্য কেউ নেই- সেকথাই আলোচিত হয়েছে পুরো সূরাটিতে।

নামকরন:
সূরা ইখলাস (আরবি ভাষায়: الإخلاص‎) আল কুরআনের ১১২ নম্বর সূরা, এর আয়াত সংখ্যা ৪টি এবং এর রূকুর সংখ্যা ১টি। ইখলাস সূরাটি মক্কায় অবতীর্ণ হয়েছে। এই সূরাটিকে মুহাম্মদ (সা:) বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলে ব্যাখ্যা করেছেন। তাৎপর্যের কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, এই আয়াতে আল্লাহ্‌র সবচেয়ে সুন্দর সংজ্ঞা দেওয়া হয়েছে । এটি কুরআনের অন্যতম ছোট একটি সূরা হিসেবেও বিবেচিত হয়ে থাকে।

শানে নুযূল:
মুশরিকরা মুহাম্মদ (সা:)-কে আল্লাহ্‌ তা’আলার বংশপরিচয় জিজ্ঞেস করেছিল, যার জওয়াবে এই সূরা নাযিল হয়। অন্য এক রেওয়ায়েতে আছে যে, মদীনার ইহুদিরা এ প্রশ্ন করেছিল। কোন কোন রেওয়ায়েতে আছে যে, তারা আরও প্রশ্ন করেছিলঃ আল্লাহ্‌ তা’আলা কিসের তৈরি, স্বর্ণ-রৌপ্য অথবা অন্য কিছুর? এর জওয়াবে সূরাটি অবতীর্ণ হয়েছে ৷

সূরা  আল-ইখলাস

بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

আরবি উচ্চারণ : বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম

বাংলা অনুবাদ : পরম করুণাময় অতি দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।

قُلْ هُوَ اللَّهُ أَحَدٌ112.1

আরবি উচ্চারণ ১১২.১। কুল্ হুওয়াল্লা-হু আহাদ্।

বাংলা অনুবাদ: ১১২.১ বল, তিনিই আল্লাহ, এক-অদ্বিতীয়।

اللَّهُ الصَّمَد112.2ُ

আরবি উচ্চারণ: ১১২.২। আল্লা-হুচ্ছমাদ্।

বাংলা অনুবাদ: ১১২.২ আল্লাহ কারো মুখাপেক্ষী নন, সকলেই তাঁর মুখাপেক্ষী।

لَمْ يَلِدْ وَلَمْ يُولَد112.3ْ

আরবি উচ্চারণ: ১১২.৩। লাম্ ইয়ালিদ্ অলাম্ ইয়ূলাদ্।

বাংলা অনুবাদ: ১১২.৩ তিনি কাউকে জন্ম দেননি এবং তাঁকেও জন্ম দেয়া হয়নি।

وَلَمْ يَكُنْ لَهُ كُفُوًا أَحَد112.4ٌ

আরবি উচ্চারণ: ১১২.৪। অলাম্ ইয়া কুল্লাহূ কুফুওয়ান্ আহাদ্।

বাংলা অনুবাদ: ১১২.৪ আর তাঁর কোন সমকক্ষও নেই।

Please follow and like us:

Post Reads: 263 Times

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *