মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন সেনা উপস্থিতির একমাত্র কারণ ‘ইসরায়েল’: ট্রাম্প

us-troops-in-middle-east-1

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে ইসরায়েলের ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্ব সম্পর্কে অবস্থান পরিষ্কার করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন  সেনা উপস্থিতির একমাত্র কারণ হল ‘ইসরায়েল’। গতকাল বুধবার মার্কিন গণমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন ট্রাম্প।

এসময় ট্রাম্প বলেন, বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এমন একটি পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, মধ্যপ্রাচ্যে আমাদের (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) উপস্থিতির তেমন কোনো প্রয়োজন নেই কারণ আমরা নিজস্বভাবে আগের তুলনায় বেশি পরিমাণে তেল উৎপাদন করছি। শুধুমাত্র একটি কারণে এখনও মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন সেনারা অবস্থান করছে… সেটা হল ‘ইসরায়েল’।

আর এসময় ট্রাম্প এটাও বলেছেন যে সৌদি আরবের সমর্থন না পেলে ইসরায়েলকে রক্ষা ও ইরানকে দমিয়ে রাখা কষ্টকর হত। সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প আরও বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র- ইসরায়েল-সৌদি আরব একযোগে কাজ করবে।

trump

এর আগে সম্প্রতি ট্রাম্পকে জামাল খাশোগি হত্যাকান্ডে সৌদি সরকার ও সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সরাসরি সম্পৃক্ততা থাকার পরও  সৌদি আরবের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক অব্যাহত রাখার কারণ জানতে চেয়ে প্রশ্ন করা হলে , ট্রাম্প বলেন, সৌদি আরব যুক্তরাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার।  খাশোগি হত্যাকান্ডে সৌদি আরবের দায় সত্ত্বেও, সৌদিকে পরিত্যাগ করা হবে যুক্তরাষ্ট্রের জন্য মারাত্মক এক ভুল। এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি উদ্বেগের বিষয় হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা ও অর্থনৈতিক স্বার্থ।

ট্রাম্প বলেন যে কোন পরিস্থিতিতে আমরা সৌদি আরবের পাশে থাকছি। ইরান ইস্যুতে সৌদি আরব যুক্তরাষ্ট্রকে সাহায্য করছে। আর যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে প্রায় ১১০ বিলিয়ন ডলারের অস্ত্র কিনতে যাচ্ছে সৌদি আরব। এর পাশাপাশি অনেক সৌদি কোম্পানি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিল্প,কৃষি, প্রযুক্তি সহ বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগ করছে ,এর ফলে যুক্তরাষ্ট্রের অনেক বেকারদের কাজের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে ।

ট্রাম্প আরও বলেন, যদিও সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান এ হত্যাকান্ডের ব্যাপারে আগে থেকেই জানতেন, তবে এই হত্যাকান্ডে তার  সরাসরি সম্পৃক্ততা থাকতে পারে, নাও থাকতে পারে।

গত ১৭ নভেম্বর ওয়াশিংটন পোস্ট এক প্রতিবেদনে জানায় যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স এজেন্সি’- সিআইএ জামাল খাশোগির হত্যাকান্ডের ঘটনা তদন্ত করে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে যে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান খাশোগিকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছিলেন ।

Please follow and like us:

Post Reads: 40 Times

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *