পবিত্র কুরআন শরীফে ভুল খুঁজতে গিয়ে মুসলমান হলেন খ্রিস্টান গবেষক নিজেই

অধ্যাপক ড. গ্যারি মিলার ছিলেন কানাডার সাবেক খ্রিস্টধর্ম প্রচারক। তিনি পবিত্র কুরআনের মধ্যে ভুল খোঁজার চেষ্টা করেছিলেন। পবিত্র কুরআন শরীফের ভুল বের করে যাতে ইসলাম ও পবিত্র কুরআন শরীফ বিরোধী প্রচারণা চালানো সহজ হয় সেজন্য তিনি এ চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু কুরআন পড়ার পর তার ভিতরে অদ্ভুত পরিবর্তন আসে। ফলে নিজেই ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে মুসলমান হন। ইসলাম গ্রহণের পর তার দেয়া হয়েছে আবদুল আহাদ উমার।

অধ্যাপক ড. গ্যারি মিলার বলেন, আমি একদিন পবিত্র কুরআন শরীফ সংগ্রহ করে তা পড়া শুরু করলাম। প্রথমে ভেবেছিলাম পবিত্র কুরআন শরীফ নাযিল হয়েছিল আরবের মরুচারীদের মধ্যে। তাই এতে নিশ্চয় মরুভূমি সম্পর্কে কথা থাকবে। পবিত্র কুরআন শরীফ নাযিল হয়েছিল ১৪০০ বছর আগে। তাই খুব সহজেই এতে অনেক ভুল খুঁজে পাব ও সেসব ভুল মুসলিমদের সামনে তুলে ধরব।
কিন্তু পবিত্র কুরআন শরীফ পড়ার পরে বুঝলাম আমার এসব ধারণা ঠিক নয়, বরং আমি অনেক আকর্ষণীয় তথ্য পেলাম। বিশেষ করে স‚রা নিসার ৮২ নম্বর আয়াতটি আমাকে গভীর ভাবনায় নিমজ্জিত করে। সেখানে আল্লাহ বলেন, এরা কী লক্ষ্য করে না পবিত্র কুরআন শরীফের প্রতি? এটা যদি আল্লাহ ছাড়া অন্য কারো পক্ষ থেকে নাযিল হতো, তবে এতে অবশ্যই বহু বৈপরিত্য দেখা যেত’।
এরপর আরো গভীরভাবে পবিত্র কুরআন শরীফ অধ্যয়ন করলেন গ্যারি মিলার। আর তার এই অধ্যয়নই তাকে নিয়ে গেল ইসলামের পথে। ইসলামের দোষ খুঁজতে গিয়ে তিনি হয়ে গেলেন একজন মুসলিম, তথা মহাসত্যের কাছে সমর্পিত একজন।
তিনি বলেছেন, আমি খুব বিস্মিত হয়েছি যে পবিত্র কুরআন শরীফে ঈসা আলাইহসা সালাম উনার মাতা হযরত মরিয়াম আলাইহাস সালাম  সম্পর্কে একটি বড় পরিপূর্ণ সূরা রয়েছে। আর এ সূরায় উনার  ব্যাপক প্রশংসা ও সম্মান করা হয়েছে যে, এত প্রশংসা বাইবেলেও দেখা যায় না। পবিত্র কুরআন শরীফের  বিভিন্ন স্থানে  নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূরপাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার  পবিত্র নাম মুবারক (মুহম্মদ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) সরাসরি মাত্র ৫ বার এসেছে।

Please follow and like us:

Post Reads: 246 Times

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *