নেপালে ইউএস-বাংলার উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত : দেশে পৌঁছাল ২৩ লাশ

নেপালে ইউএস-বাংলার উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়ে নিহত বাংলাদেশিদের মধ্যে ২৩ জনের লাশ দেশে এসে পৌঁছেছে। বিকেল চারটার দিকে লাশগুলো নিয়ে বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর একটি বিশেষ উড়োজাহাজ হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

সোয়া চারটার দিকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কাছে লাশগুলো হস্তান্তর করেন বিমানবাহিনীর প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল আবু এসরার। এ সময় সিভিল অ্যাভিয়েশনের চেয়ারম্যানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

লাশগুলো শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ১৯টি গাড়িতে করে বিমানবন্দর থেকে সরাসরি আর্মি স্টেডিয়ামে নেওয়া হয়। এরপর অন্য আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হবে।

এর আগে আজ সোমবার সকালে কাঠমান্ডুতে বাংলাদেশ দূতাবাসে তাঁদের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। ইউএস-বাংলার মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) কামরুল ইসলাম বলেন, সকাল নয়টার দিকে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

যেসব যাত্রীর মৃতদেহ ঢাকায় আনা হয়েছে তাঁরা হলেন ফয়সল আহমেদ, বিলকিস আরা, বেগম হুরুন নাহার বিলকিস বানু, আক্তারা বেগম, নাজিয়া আফরিন চৌধুরী, রকিবুল হাসান, সানজিদা হক, হাসান ইমাম, আখি মণি, মিনহাজ বিন নাসির, এফ এইচ প্রিয়ক, তামারা প্রিয়ন্ময়ী, মতিউর রহমান, এস এম মাহমুদুর রহমান, তাহিরা তানবিন শশী রেজা, উম্মে সালমা, অনিরুদ্ধ জামান, নুরুজ্জামান ও রফিক উজ জামান। যে চার বিমান ক্রুর মৃতদেহ আনা হয়েছে, তাঁরা হলেন আবিদ সুলতান, পৃথুলা রশীদ, খাজা হোসেন মোহাম্মদ শফি ও শারমিন আক্তার নাবিলা।

১২ মার্চ কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলার ড্যাস ৮ কিউ ৪০০ উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হওয়ার ঘটনায় ৪ ক্রুসহ বিমানের ৭১ জনের সবাই হতাহত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ২৬ বাংলাদেশি, ২২ নেপালি, ১ জন চীনাসহ ৪৯ জন নিহত হন। আর ১০ বাংলাদেশি, ৯ নেপালি, ১ মালদ্বীপের নাগরিকসহ ২০ জন আহত হন। আহত ব্যক্তিদের কাঠমান্ডুর তিনটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। আর নিহত ব্যক্তিদের মরদেহ নেওয়া হয় টিচিং হাসপাতালের মর্গে।

বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় যে ১০ বাংলাদেশি প্রাণে বেঁচে গেছেন, তাঁদের মধ্যে সাতজন ইতিমধ্যে দেশে ফিরে এসেছেন। একজনকে ভারতে ও একজনকে পাঠানো হয়েছে সিঙ্গাপুরে। কাঠমান্ডু মেডিকেলে চিকিৎসা নেওয়া শাহীন ব্যাপারী গতকাল রোববার বিকেলে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের একটি ফ্লাইটে ঢাকা পৌঁছালে বিমানবন্দর থেকেই তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে নিয়ে যাওয়া হয়। আর আজ ২৩ লাশ বহনকারী উড়োহাজাকে করে ফেরেন আহত কবির হোসেন। তাঁকে ঢাকা মেডিকেলে নেওয়া হয়েছে। এখন ইয়াকুব আলী কাঠমান্ডুতে চিকিৎসাধীন আছেন। আহত যাত্রীদের সুচিকিৎসার স্বার্থে হাসপাতালে ভিড় না করার পরামর্শ দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

Please follow and like us:

Post Reads: 162 Times

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *