চাকার ক্ষয়রোধে পাঁচটি ট্রেন উল্টো দিকে চলবে, যাত্রীদের আতঙ্কিত না হওয়ার আহ্বান

0
148
চাকার ক্ষয়রোধে পাঁচটি ট্রেন উল্টো দিকে চলবে, যাত্রীদের আতঙ্কিত না হওয়ার আহ্বান

চাকার ক্ষয় পূরণ করতে ঢাকা থেকে বিভিন্ন গন্তব্যের পাঁচটি আন্তঃনগর ট্রেনের দিক পরিবর্তন করে উল্টোদিকে চলাচলের সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ রেলওয়ে। চাকার ক্ষয় ঠেকাতে রেলওয়ের নিয়মমতে ট্রেনটি উল্টো দিক চালানো হয়। কোচের দিক পরিবর্তন হলে ট্রেনের চাকার ক্ষয় পূরণ হয়ে যায়। ট্রেনের চাকার রক্ষণাবেক্ষণের জন্য এ কাজটি বেশ জরুরি। এক্ষেত্রে যাত্রীদের আতঙ্কিত না হওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশি বিভাগীয় রেল কর্তৃপক্ষ। পাকশি বিভাগীয় দফতরের ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) আসাদুল হক জানান, ট্রেনে থাকা যাত্রীরা যাতে আতঙ্কিত না হয়, সেজন্য প্রতিটি স্টেশনেই মাইকিং করে যাত্রীদের সতর্ক থাকতে বলা হবে। এ ধরনের নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণের ঘটনায় প্রায় প্রতিবারই যাত্রীরা চিৎকার জুড়ে দেন এবং বিভিন্ন গুজব ছড়িয়ে পড়ে। এজন্য ভ্রমণপ্রিয় ট্রেন যাত্রীদের বিভ্রান্ত না হয়ে সতর্ক থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন ডিআরএম আসাদুল হক। তিনি বলেন, কোনো ধরনের দুর্ঘটনা ঘটেছে বা রেল লাইনে সমস্যা হয়েছে এমন গুজবে কোনো যাত্রী কান দেবেন না। ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা বিভিন্ন রুটের চিলাহাটি-রাজশাহী-খুলনা-বেনাপোল অভিমুখে যাওয়া পাঁচটি আন্তনগর ট্রেন নির্দিষ্ট স্টেশনে না এসে দিক পরিবর্তন করে উল্টো স্টেশনের দিকে চলে যাবে। এ সময় যাত্রীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে, অনেকেই চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করেন। এ ধরনের ঘটনা থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানান তিনি।এর মধ্যে গত ০৯/০২/২০২০, রবিবার ৭৬৫ নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনটি চাটমোহর অতিক্রম করার পর ঈশ্বরদী বাইপাস হয়ে চিলাহাটির উদ্দেশে না গিয়ে ঈশ্বরদী জংশন স্টেশনে ঢোকে। এছাড়া আজ ১১/০২/২০২০, মঙ্গলবার পশ্চিমাঞ্চলের আরো চারটি ট্রেন একই ভাবে উল্টো গন্তব্যে যাবে বলে রেলওয়ে সূত্র নিশ্চিত করেছে। এর কারণ হিসেবে রেল সূত্র জানায়, একদিকে চলার কারণে ট্রেনের চাকার নির্দিষ্ট জায়গা ক্ষয়ে যেতে থাকে। চাকার নির্দিষ্ট স্থানের ওই ক্ষয় ঠেকাতে রেলওয়ের নিয়মমতেই সেই ট্রেনটি উল্টোদিক চালানো হয়। কোচের দিক পরিবর্তন হলে ট্রেনের চাকার যে ক্ষয়টি হয়, তা পূরণ হয়ে যায়। সে জন্যই পূর্ব সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ঢাকা থেকে বিভিন্ন গন্তব্যের পাঁচটি আন্তনগর ট্রেন দিক পরিবর্তন করে উল্টোদিকে চলাচলের সিদ্ধান্ত হয়। সাধারণত ২-৩ বছর পরপরই এটি করা হয়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here